Bike Loan

Electric Bike: অবাক কাণ্ড ঘটিয়ে নজর কাড়লেন মোহাম্মদ রিয়াজ! হার মানাবে নামি দামি স্কুটারকে, খরচ মাত্র 25 হাজার টাকা

Aindrila Dhani

Updated on:

mohammad-riyaz-electric-bike

ফেলে দেওয়া জিনিস থেকে কার্যকরী জিনিস তৈরি করতে ভারতের কোন তুলনা হয় না। আপনাকে যদি বলা হয় ফেলনা জিনিস থেকে কোন কাজের জিনিস তৈরি করতে, তাহলে আপনি কী বানাবেন? এখন তো কিছু কিছু স্কুলেও এই ধরনের ক্লাস শুরু হয়েছে। ওয়াশ সেন্টারের স্ক্র্যাপ থেকে সম্প্রতি নতুন ইলেকট্রিক বাইক বানিয়েছে একজন ভারতীয় যুবক।

বিহারের মোহাম্মদ রিয়াজ নামের একজন 20 বছরের যুবক এই কাজ করে দেখিয়েছে। এই ঘটনার সামনে আসার পর থেকে অবাক হয়ে গেছে দেশবাসী। যুবকটি এই ইলেকট্রিক বাইক কার ওয়াশ সেন্টারের ফেলে দেওয়া জিনিস থেকে বানিয়েছে। সমস্তীপুরের পটোরি গ্রামের বাসিন্দা মোহাম্মদ রিয়াজ একটি কার ওয়াশিং সেন্টারে কাজ করে। ওই সেন্টার থেকে প্রতিদিন অপ্রয়োজনীয় জিনিস ফেলে দেওয়া হয়। তাদের ডাস্টবিন থেকে রিয়াজ এমন কিছু জিনিস পেয়েছিল, যা ব্যবহার করে সে ফুল ফাংশনাল ব্যাটারি অপারেটেড বাইক তৈরি করে ফেলেছে। এই বাইক যদি সঠিক হাতে পৌঁছায় তাহলে আগামী দিনে আমাদের দেশে গ্রিন মোবেলিটি বৃদ্ধি পাবে।

মোহাম্মদ রিয়াজের বানানো ইলেকট্রিক বাইকের ফিচার

এই ইলেকট্রিক বাইকে বেশ কিছু ফিচার রয়েছে। এই ধরনের ফিচার আপনারা অন্যান্য ইলেকট্রিক বাই কেউ দেখতে পাবেন। ফেলনা জিনিস থেকে বানানো এই ইলেকট্রিক বাইকে ডিজিটাল মিটার, ব্যাটারি ভোল্ট মিটার, এলইডি ইন্ডিকেটর আর এলইডি হেডলাইটের মতো ফিচার রয়েছে। এই ইলেকট্রিক বাইকটি প্রতি ঘন্টায় সর্বোচ্চ 40 কিলোমিটার বেগে ছুটতে সক্ষম। একবার সম্পূর্ণ চার্জ দিলে 50 কিলোমিটার রেঞ্জ দিতে পারে এই বাইক।

মোহাম্মদ রিয়াজের বানানো ইলেকট্রিক বাইকটির দাম

মোহাম্মদ রিয়াজের এই সম্পূর্ণ ইলেকট্রিক বাইক বানাতে খরচ হয়েছে 20 হাজার টাকা থেকে 25 হাজার টাকা। তবে এটি যদি কোন শোরুম থেকে বিক্রি করা হয় তাহলে 50 হাজার টাকা থেকে 60 হাজার টাকা দাম পড়বে।